কুমিল্লায় শুধু সাত পরিবারই হাতে খাদি বোনে

bcv24 ডেস্ক    ০৮:১৮ পিএম, ২০২২-০১-১২    11


কুমিল্লায় শুধু সাত পরিবারই হাতে খাদি বোনে

স্বদেশি আন্দোলনের সময় মহাত্মা গান্ধী বিদেশি পণ্য বয়কটের ডাক দেন। মোটা কাপড়, মোটা ভাত-সর্বত্র এমন আওয়াজ ওঠে। স্বদেশি আন্দোলনের পর খাদি কাপড়ের জনপ্রিয়তা তুঙ্গে উঠে যায়। মহাত্মা গান্ধী নিজেও খাদির চাদর পরিধান করতেন।
কুমিল্লার চান্দিনার বেলাশ্বর। মহাসড়ক লাগোয়া চান্দিনা বাজার থেকে দুই কিলোমিটার দূরে অবস্থিত একটি গ্রাম। এই গ্রামে আছে ডেনিম গার্মেন্ট। সেখানে কাজ করেন কয়েক হাজার শ্রমিক। গার্মেন্ট সংলগ্ন তিন রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দার কাছে জানতে চাইলাম, খাদি কাপড়ের উৎপাদন হয় কোথায়? কেউ উত্তর দিতে পারেন না। দুই-একজন পাশের থানগাঁও গ্রাম দেখিয়ে

দেন। যে গ্রামের খাদি সারা দুনিয়া মাত করেছে, সেই গ্রামে খাদি কাপড় কোথায় তৈরি হয় তা জানেন না এখানকার যুবসমাজ, ভাবতেই মন খারাপ হয়ে ওঠে! একটু পূর্ব দিকে যেতে চোখে পড়ে ছোট টং দোকান। দোকানে বসে চায়ে চুমুক দিচ্ছেন এক ব্যক্তি। নাম ক্ষিতিশ দেবনাথ। একটু কথা বলে জানা গেলো এই ক্ষিতিশ দেবনাথ ও তার ভাতিজা মতিলাল দেবনাথ এই গ্রামে এখনো খাদি কাপড়ের উৎপাদন ধরে রেখেছেন। পরিচয় হওয়ার পর ক্ষিতিশ দেবনাথ আমাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে যান।

বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, মূল ঘর থেকে দক্ষিণ দিকে কাচারি ঘরের মতো একটি ঘর। ঘরের ভেতর চরকি, চরকা আর হ্যান্ডলুম মেশিন। যে মেশিনে হাতের সাহায্যে তাঁত বোনা হয়। গর্তে বসে দুই হাত দিয়ে টেনে সুতা থেকে কাপড় তৈরি হয়। তুলা থেকে সুতা বানানো হয় চরকায়। পাশে চৌকির ওপর সুতা ও থান কাপড়ের ভাঁজ ফেলে রাখা হয়েছে।

ক্ষিতিশ দেবনাথ জানান, ৪০ বছর ধরে আমি এই কাজ করছি। বাবা ও আমরা সাত ভাই মিলে খাদি কাপড় তৈরি করতাম। আমি পরিবারের ছোট ছেলে। বাবা ও চার ভাই মারা গেছেন। দুই ভাইয়ের অনেক বয়স। তারা এ পেশা ছেড়ে দিয়েছেন। আমার তিন মেয়ে, ছেলে নেই। তাছাড়া আমার বয়স এখন ৬২, শ্বাসকষ্ট আছে। এক ভাতিজা ছাড়া কেউ এই পেশায় রইলো না। দুঃখ হয়, আমার মৃত্যুর পর এই গ্রামে কুমিল্লার ঐতিহ্য খাদিকে কেউ ধরে রাখবে বলে মনে হয় না।

তিনি আফসোস করে বলেন, ছোট বেলায় অন্য কাজ শিখিনি। ছেলে সন্তানও নেই। মেয়েদের বিয়ে হয়ে গেছে। ওরা আগে কাজে সহায়তা করতো। এখন কেউ কাজে সহযোগিতা করে না। দিনে ১২ থেকে ১৫ গজ কাপড় বানাই। শীত মৌসুমে ওইসব কাপড় বিক্রি করি। গড়ে প্রতিগজ কাপড়ে ২০ টাকা লাভ হয়। এ কাপড়ের একটি অংশ শহরে পাঠাই। বাকি অংশ সিঙ্গাপুর ও জাপানের কিছু কাস্টমার নিয়ে যান।

তিনি জানান, এ কাপড়ের চাহিদা কমেনি। পুরো বছরের বানানো কাপড় কখনো কখনো এক সপ্তাহেই বিক্রি হয়ে যায়। সমস্যা হলো, উৎপাদন আগের মতো নেই। যেমন, করোনার পূর্বে আমার ও মতিলালের আটটি হ্যান্ডলুম মেশিন ছিল। এখন আছে দুটি। শহরে অনেকবার ঋণের জন্য গিয়েছি। চার শতাংশ সুদে শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের ঋণ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সে ঋণের টাকা অন্যদের দিয়ে দেওয়া হয়। আমরা চেষ্টা করেও হতাশ হই। এভাবে আমরা তাঁত শিল্পী, যারা এ পেশা ধরে রেখেছি, সবাইকেই বঞ্চিত করা হয়। নতুনদেরও এ পেশায় উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে না। কোনো মার্কেটিং নেই। মোটকথা, খাদিকে বাঁচাতে প্রশাসনের কোনো সুদৃষ্টি গত আট বছর চোখে পড়েনি।

খাদির বর্তমান অবস্থা


কুমিল্লার মুরাদনগরের সাঁইচাইল ও চান্দিনার বেলাশ্বরের (বেলাশহর) অন্তত এক হাজার পরিবার খাদি কাপড় উৎপাদনের সাথে যুক্ত ছিলেন। স্বাধীনতার পর দেবিদ্বারের বরকামতায় ৫০টি পরিবার সাঁইচাইল থেকে এসে খাদি কাপড় উৎপাদন শুরু করেন। বর্তমানে এই তিন গ্রামের মোট সাতটি পরিবার খাদি কাপড় উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত আছেন। যাদের দিনে গড় উৎপাদন ১০০ গজ কাপড়। যার একটি অংশ বিদেশিরা কিনে নেন।

এদিকে, বর্তমানে কুমিল্লা শহরে খাদির নাম সংযুক্ত দোকান আছে চার শতাধিক। নগরীর রাজগঞ্জ বাজারের পশ্চিম দিক থেকে কান্দিরপাড়ের রামঘাটলা পর্যন্ত এসব দোকানের অবস্থান। এসব দোকানের তিন-চারটি বাদে বাকি সব দোকানেই মেশিনে (পাওয়ার লুম) তৈরি কাপড় বিক্রি হয়। ওইসব দোকানে খাদিকাপড়ের পাশাপাশি পাওয়ার লুমে তৈরি কাপড় বিক্রি হয় বেশি। পাঞ্জাবি, ফতোয়া, থ্রি-পিস ও চাদরের চাহিদা বেশি।

দিনে যে পরিমাণ পোশাক বিক্রি হয়, তাতে অন্তত ২০ হাজার গজ কাপড়ের দরকার হয়।

খাদি কুটিরের স্বত্বাধিকারী অরুপ সরকার বলেন, দিন দিন মানুষ ফ্যাশনের দিকে ঝুঁকে গেছে। তারা নিখুঁত কাপড় পছন্দ করেন। হাতে তৈরি খাদি কাপড় পরতে বেশ আরামদায়ক। কিন্তু টেকসই নয়। হাতে তাঁত বোনার কারণে এসব কাপড় নিখুঁতও হয় না। অপরদিকে মেশিনে বোনা কাপড় নিখুঁত ও টেকসই। তবে, অরিজিনাল খাদির মতো আরামদায়ক নয়। বেশিরভাগ মানুষ মেশিনের চকচকে জিনিসটাই বেছে নিচ্ছেন।

খাদি ভূষণের স্বত্বাধিকারী চন্দন দেব রায় জানান, নব্বইয়ের দশকে মেশিনারি কাপড়ের উৎপাদন বেড়ে যায়। দামের মধ্যে অসামঞ্জস্য দেখা দেয়। খাদি আমাদের ঐতিহ্য, এটা ব্র্যান্ড। প্রকৃত খাদি কাপড়ের চাহিদাও অনেক। ভালো পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এ শিল্প ঘুরে দাঁড়াতো।

খাদির ইতিহাস

খাদে বসে হ্যান্ডলুমে তাঁত বোনা হয় বলে এ কাপড়ের নাম খাদি হয়েছে- খাদির জন্মের পর থেকে এখন পর্যন্ত এ কথাটি প্রচলিত আছে। দুর্গাপূজার দশমীর দিন কুমিল্লায় খাদি কাপড় বিক্রির জোয়ার সৃষ্টি হতো। ব্যবসায়ীরা দলবেঁধে এসে খাদি কাপড় নিয়ে যেতেন।
কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য নিয়ে গবেষণা করেন মীর আহসানুল কবির। তিনি বলেন, খাদির গোড়াপত্তন হয়েছে একশ বছরের বেশি সময় আগে। ওই সময় শুধু খাদি কাপড় নয়, কুমিল্লার বেনারসি শাড়িরও তুমুল চাহিদা ছিল। সারা বিশ্বেই কুমিল্লার শাড়ি ও খাদি কাপড়ের নামডাক ছিল। স্বদেশি আন্দোলনের সময় মহাত্মা গান্ধী বিদেশি পণ্য বয়কটের ডাক দেন। মোটা কাপড়, মোটা ভাত-সর্বত্র এমন আওয়াজ ওঠে। স্বদেশি আন্দোলনের পর খাদি কাপড়ের জনপ্রিয়তা তুঙ্গে উঠে যায়। মহাত্মা গান্ধী নিজেও খাদির চাদর পরিধান করতেন। কুমিল্লার মানুষ খাদি কাপড় পছন্দ করতেন। বড় বড় নেতারা খাদির পায়জামা, চাদর, পাঞ্জাবি পরে গৌরববোধ করতেন। এটার প্রচলন ৩০ বছর আগেও ব্যাপকহারে ছিল।

তিনি আরও বলেন, খাদি কুমিল্লাকে ব্র্যান্ডিং করে। একে ভালোভাবে টিকিয়ে রাখা জরুরি।
কুমিল্লা দোকান মালিক সমিতির সভাপতি সানাউল হক বলেন,খাদি কুমিল্লাকে প্রতিনিধিত্ব করে। তাঁত শিল্পীরা যদি আমাদের কাছে স্বল্পসুদে ঋণ ও মার্কেটিংয়ের সহায়তা চায়, দোকান মালিক সমিতির পক্ষ থেকে তাদেরকে সহায়তা করা হবে। আমরাও চাই, খাদি যুগ যুগ ধরে টিকে থাকুক।

কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, খাদি শিল্পীরা যাতে সহজে তাদের উৎপাদন চালিয়ে যেতে পারেন, সে জন্য এডিসির (জেনারেল) মাধ্যমে ব্যাংকগুলোর সাথে কথা বলে কম সুদে ঋণের ব্যবস্থা করা হবে। কুমিল্লায় এসে আমি নিজেও খাদি কাপড়ের পাঞ্জাবি পরে ব্র্যান্ডিং করি। ওদের জন্য ব্র্যান্ডিংয়ের ব্যবস্থাও করা হবে।


রিটেলেড নিউজ

রাজধানীর ধনীদের এখন ঝোঁক ডুপ্লেক্স বাড়িতে

রাজধানীর ধনীদের এখন ঝোঁক ডুপ্লেক্স বাড়িতে

bcv24 ডেস্ক

২০২১ সালে আবাসন খাতে প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকা বিনিয়োগ হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকা বিনি... বিস্তারিত

জেনারেল মোটরসকে হটিয়ে শীর্ষে টয়োটা

জেনারেল মোটরসকে হটিয়ে শীর্ষে টয়োটা

bcv24 ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বিখ্যাত গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জেনারেল মোটরস প্রায় ৯০ বছর ধরে রাজত্ব করে ... বিস্তারিত

তারকা হোটেল কক্সবাজারে ভালো ব্যবসা, ঢাকায় কম

তারকা হোটেল কক্সবাজারে ভালো ব্যবসা, ঢাকায় কম

bcv24 ডেস্ক

করোনার মধ্যে তারকা হোটেলগুলোর মধ্যে ব্যবসায়ে এগিয়ে আছে কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন হোটেল। ঢ... বিস্তারিত

এলপিজি সিলিন্ডার ও অটোগ্যাসের দাম আরও কমলো

এলপিজি সিলিন্ডার ও অটোগ্যাসের দাম আরও কমলো

bcv24 ডেস্ক

আবারও কমলো তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) ও পরিবহনের জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত এলপিজির (অটোগ্য... বিস্তারিত

কাই অ্যালুমিনিয়ামের সাড়ে আট কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি

কাই অ্যালুমিনিয়ামের সাড়ে আট কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি

ড. হারুন অর রশিদ

চার বছরে ৮ কোটি ৬৪ লাখ টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে অ্যালুমিনিয়াম প্রোফাইল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান কাই ... বিস্তারিত

তৃণমূলের ৩০ লাখ নারীর ভাগ্য বদলে গেছে পোশাক শিল্পের কারণে

তৃণমূলের ৩০ লাখ নারীর ভাগ্য বদলে গেছে পোশাক শিল্পের কারণে

bcv24 ডেস্ক

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, দেশের তৃণমূলের ৩০ লাখ নারীর ভাগ্য বদলে গেছে পোশাক শিল্পের কারণ... বিস্তারিত

সর্বশেষ

 বাংলাদেশের আস সালাম মসজিদ কেন অনন্য?

বাংলাদেশের আস সালাম মসজিদ কেন অনন্য?

bcv24 ডেস্ক

চোখ ধাঁধানো স্থাপত্যের জটিল সংমিশ্রণ আর দৃষ্টিনন্দন চেহারার এক অনন্য স্থাপনা আস-সালাম জামে মসজিদ... বিস্তারিত

চোখ কী বয়স বলে দেবে?

চোখ কী বয়স বলে দেবে?

bcv24 ডেস্ক

জন্মের পর থেকে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন কারণে চোখের প্রকৃত জৈবিক স্বাস্থ্য এবং ব্যক্তির প্র... বিস্তারিত

সড়ক দুর্ঘটনায় সময়ের আলোর সাংবাদিক হাবীবুর রহমান নিহত

সড়ক দুর্ঘটনায় সময়ের আলোর সাংবাদিক হাবীবুর রহমান নিহত

bcv24 ডেস্ক

দৈনিক সময়ের আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক হাবীবুর রহমান মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার গ... বিস্তারিত

 আলপিনে সাংবাদিকতা করবেন ববি, সঙ্গী মিলন ও জন

আলপিনে সাংবাদিকতা করবেন ববি, সঙ্গী মিলন ও জন

ড. হারুন অর রশিদ

ইফতেখার চৌধুরীর ‘দেহরক্ষী’ ছবিতে প্রথম জুটি বেঁধেছিলেন আনিসুর রহমান মিলন ও ইয়ামিন হক ববি। পরে ‘ব... বিস্তারিত